1. jahidul.savarnews24@gmail.com : News Editor : News Editor
  2. jahidul.moviebangla@gmail.com : Jahidul Islam : Jahidul Islam
  3. savarnews24@gmail.com : savarnews24 :
সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:৩৪ অপরাহ্ন
ঘোষনা :
সাভার নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমে সবাইকে স্বাগতম >> আপনার আশপাশের ঘটে যাওয়া ঘটনা জানাতে আমাদের মেইল করুন। ই-মেইল : savarnews24@gmail.com

৭দিনে এক কোটি মানুষ যেভাবে টিকা পাবেন

  • সর্বশেষ আপডেট : বুধবার, ৪ আগস্ট, ২০২১
  • ৩৬৮ বার পড়েছেন

বাংলাদেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রী দুদিন আগে জানিয়েছেন যে আগস্টের ৭ তারিখ থেকে এক সপ্তাহের মধ্যে অন্তত এক কোটি মানুষকে করোনাভাইরাস প্রতিরোধী টিকা দেয়া হবে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের টিকা সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, সপ্তাহব্যাপী এই টিকা কর্মসূচীতে গ্রাম পর্যায়ের মানুষজন, বিশেষ করে বয়স্ক ব্যক্তি এবং নারীদের অগ্রাধিকারের দেয়া হবে।

টিকা কর্মসূচী সহজ করার জন্য জানানো হয়েছে যে অনলাইনে যারা নিবন্ধন করতে পারবেন না এমন ব্যক্তিরা জাতীয় পরিচয়পত্র দেখিয়ে কেন্দ্রেই নিবন্ধন করে টিকা নিতে পারবেন। ২৫ বছর বয়স থেকে টিকা দেয়া হবে।

করোনাভাইরাস প্রতিরোধী টিকা বিষয়ে বিশেষ দায়িত্ব প্রাপ্ত কর্মকর্তা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা জানিয়েছেন “সারা দেশে ৪ হাজার ৬০০টি ইউনিয়ন আছে। প্রতিটি ইউনিয়নের একটি ওয়ার্ডে একটি করে কেন্দ্র এবং তিনটি বুথ থাকবে।”

“প্রতিটি বুথে দুশো করে মোট ছয়শ জনকে প্রতিদিন টিকা দেয়া হবে। কেন্দ্র হিসেবে ইউনিয়ন পরিষদের কাছাকাছি কোন স্কুল, মাদ্রাসা অথবা যেখানে জায়গা আছে এরকম প্রতিষ্ঠানকে ব্যবহার করার কথা বলেছি। এটা তারা স্থানীয়ভাবে নির্ধারণ করবেন।”

সারা দেশে এই কর্মসূচীর বিষয়ে নির্দেশনা পৌঁছে গেছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

শিশুদের টিকা কর্মসূচীতে বাংলাদেশে ব্যাপক সফলতার কথা মনে করেয়ে দিয়ে মিরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা বলেন এই কর্মসূচীতেও সেই মডেল অনুসরণ করা হবে।

বছরব্যাপী যেসব স্বাস্থ্যকর্মী শিশুদের টিকা দেয়ার কাজে নিয়োজিত থাকেন তারা সহায়তা করবেন।

বাংলাদেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন বাংলাদেশে এখন সোয়া এক কোটি ডোজ টিকা মজুদ রয়েছে।

সেগুলো হাতে নিয়ে এই কর্মসূচী শুরু হচ্ছে। এই মাসের মধ্যেই আরও এক কোটি ডোজের চালান পৌঁছে যাবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

বাংলাদেশে ফেব্রুয়ারি ৭ তারিখ থেকে করোনাভাইরাস প্রতিরোধী টিকা দেয়ার গণকর্মসূচী শুরু হয়। এপর্যন্ত ১ কোটি ৩৬ লাখ মানুষকে টিকা দেয়া হয়েছে।

গণ-টিকাদান কর্মসূচীর শুরু থেকে নিবন্ধন নিয়ে নানা জটিলতা, টিকার ঘাটতি এসব কারণে এক পর্যায়ে টিকা কার্যক্রম বন্ধ করে দিতে হয়।

অনেকেই টিকা নিতে আগ্রহীও ছিলেন না। কিন্তু করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ব্যাপকহারে বৃদ্ধি এবং তা গ্রামাঞ্চলেও পৌঁছে যাওয়ার পর টিকার ব্যাপারে অনেকেরই আগ্রহ বেড়েছে।

ডা. ফ্লোরা জানিয়েছেন, অনলাইনে নিবন্ধন করে অথবা তা ছাড়াও টিকা নেয়া যাবে।

কর্মসূচী সহজ করার জন্য যারা অনলাইনে নিবন্ধন করতে পারবেন না তারা জাতীয় পরিচয়পত্র নিয়ে নিজের এলাকার টিকা কেন্দ্রে গেলে সেখানেই নিবন্ধন করে টিকা নেয়া যাবে।

সম্প্রতি স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেছিলেন জাতীয় পরিচয়পত্র ছাড়াও টিকা নেয়া যাবে।

নিউজটি শেয়ার করুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ সংক্রান্ত আরও খবর :