1. jahidul.moviebangla@gmail.com : Jahidul Islam : Jahidul Islam
  2. savarnews24@gmail.com : savarnews24 :
মঙ্গলবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২০, ০৮:২৫ অপরাহ্ন
ঘোষনা :
সাভার নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমে সবাইকে স্বাগতম >> আপনার আশপাশের ঘটে যাওয়া ঘটনা জানাতে আমাদের মেইল করুন। ই-মেইল : savarnews24@gmail.com

একটিই আকুতি- আইনা দেও ‘একবার মেয়ের মুখ টা দেখি দুই নয়নে

  • সর্বশেষ আপডেট : বৃহস্পতিবার, ১৯ নভেম্বর, ২০২০
  • ১৯২ বার পড়েছেন
মানবতার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন ১নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী রমজান আহম্মেদ
একটিই আকুতি- আইনা দেও ‘একবার মেয়ের মুখ টা দেখি দুই নয়নে
জর্ডানে মৃত্যবরন করা সাভারের রাজিয়া আক্তার(৩৫) এর মরদেহ ফিরিয়ে আনার জন্য এভাবেই আকুতি জানায় হতদরিদ্র রাজ্জাক।
নিহতের পরিবারের সদস্যরা জানান, সংসারে স্বচ্ছলতা ফেরাতে ৩ বছর আগে জর্ডানে পাড়ি জমান রাজিয়া। সেখানে তাকে একটি হাসপাতালের পরিছন্নতাকর্মীর কাজ দেওয়ার কথা থাকলেও তাকে গৃহকর্মী হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়।
হঠাৎ করে জর্ডানে মৃত্যবরন করেন রাজিয়া।
রাজিয়া সাভার রেডিও কলোনীর বাসিন্দা মোঃ রাজ্জাক এর মেয়ে।।
হতদরিদ্র রাজ্জাক দ্বারে দ্বারে ঘুরেও জর্ডান থেকে মেয়ের লাশ দেশে ফিরিয়ে আনার কোন ব্যবস্থা করতে পারে নি, মেয়ের লাশটুকু দেখার অপেক্ষায় দুই চোখ বেয়ে শুধুই অশ্রু গড়াচ্ছিলো এই বাবার।
রাজিয়া পিতা মোঃ রাজ্জাক প্রায় ১মাস সরকারী এক দপ্তর থেকে আরেক দপ্তরে ঘুরতে থাকেন,
লাশ দেশে ফেরত আনার জন্য খরচ বাবদ,
১৮৬০০০/- টাকা তার কাছে দাবী করা হয়। কিন্তু হতদরিদ্র রাজ্জাকের পক্ষে কোনভাবেই সে টাকা জোগাড় করার সামর্থ না থাকায় নিরাশ হয়ে ফিরে আসেন।
রাজ্জাক বলেন, আমি সাভার পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডে বসবাস করি, লোকে মুখে রমজান আহম্মেদ উদারতা ও গরিব অসহায় মানুষকে সাহায্য সহযোগিতার কথা শুনে, রমজান আহম্মেদ এর কাছে যাই এবং সব কিছু ভেঙ্গে বলেন, রমজান আহমেদ আমাদের কান্নাকাটি দেখে খুব গুরুত্ব সহকারে টানা কয়েকদিনের নিরলস পরিশ্রমে, ঢাকা রেঞ্জ ডিআাইজি, হাবিবুর রহমান স্যারের সহযোগীতায় সেই লাশ দেশে ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়া শুরু করে, আজ রাত ১২ টার পর লাশ দেশে এসে পৌছায়। রমজান আহম্মেদ এয়ারপোর্টে গিয়ে নিজ দায়িত্বে লাশ গ্রহন করে, আমাদেের নিকট হস্তান্তর করেন।
রাজ্জাক আরও বলেন, রমজান আহম্মেদ তিনি মানুষ না তিনি ফেরেস্তা, আমরা যখন শেষবারের মত মেয়ের মুখ দেখার আশা ছেড়েই দিয়েছিলাম, তখন রমজান আহম্মেদ আমার মেয়ের লাশ জর্ডান থেকে দেশে ফিরিয়ে আনার ব্যবস্থা করেন, দুই হাত তুলে দোয়া করি, হে আল্লাহ তুমি রমজান আহম্মেদ কে নেক হায়াত দান করো।
রাজিয়ার ছোট ভাই জানান, এক প্রবাসী তাদের ফোন করে বোনের মৃত্যুর খবর দেন। জর্ডানের একটি সরকারি হাসপাতালের হিমঘরে তার বোনের মরদেহ রাখা হয়েছে বলে তাদের খবর দেয়া হয়।
বোনের মরদেহ দেশে আনার মতো অর্থ তাদের ছিল না। পরে ১নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী রমজান ভাই এর মাধ্যমে, তার সহযোগিতায় মরদেহ আজ রাতে দেশে ফিরে আসে, এয়ারপোর্ট থেকে রমজান ভাই লাশ বুঝিয়ে দিলে, আমার বড় বোনের লাশ সাভার রেডিও কলোনীতে নিয়ে আসি।
সকালে আমার বড় বোনের লাশ কবরস্থানে জানাযা শেষে দাফন করা হবে।
রমজান আহম্মেদ উপস্থিত থেকে সেই লাশের দাফন,কাফন এর ব্যবস্থা করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ সংক্রান্ত আরও খবর :